জনপ্রিয়তার প্রথম অগ্নিপরীক্ষায় মোদি

0

আলোরপথ২৪.কম

আগামী শনিবার প্রথমবারের মতো অগ্নিপরীক্ষার মুখোমুখি হতে হবে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় আসা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে । ওই দিন ভোট নেওয়া হবে দিল্লির বিধানসভার নির্বাচনে । অনেক দিন ধরে জোর গুঞ্জন চলছে নির্বাচনে কে জিতবে, তা নিয়ে । কানাঘুষা চলছে—মোদির ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) নয়াদিল্লিতে ক্ষমতা সংহত করবে, নাকি ফিরে আসবে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি (এএপি)?

গত বছর বিজেপি কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন সংযুক্ত প্রগতিশীল মোর্চাকে বিশাল হারের লজ্জায় ডুবিয়ে ক্ষমতায় আসে। সে হিসেবে বলা চলে, মোদি সরকার মধুচন্দ্রিমার সময় পার করছে । কিন্তু এখন সময় এসেছে বাস্তবতার মুখোমুখি হওয়ার । বিশ্লেষকেরা মনে করছেন,যতটা জনপ্রিয়তা নিয়ে মোদি ক্ষমতায় এসেছিলেন, তার কতটা এখন আছে, তা দিল্লির নির্বাচনের মধ্য দিয়েই স্পষ্ট হবে বলে ।

দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী পদে বিজেপির প্রার্থী একসময়ের ডাকসাইটে পুলিশ কর্মকর্তা কিরণ বেদি। এ পদে আম আদমি পার্টি থেকে লড়ছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। নির্বাচনের আগ মুহূর্তে তিনটি প্রতিষ্ঠিত সংস্থার জরিপে এএপির জয়জয়কার দেখা গেছে। বিজেপিকে রেখে মানুষ কেন এএপির দিকে ঝুঁকছে? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, ‘উড়ে এসে জুড়ে বসা’ কিরণ বেদিকে মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী ঘোষণা করায় দলের কর্মীরা হতাশ। আর কেজরিওয়াল তো একেবারে তৃণমূল থেকে উঠে আসা ব্যক্তি, যাঁকে ভোটাররা নিজেদের লোকই মনে করেন। এ ছাড়া এএপি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, ক্ষমতায় এলে আগেরবারের মতো এবারও তারা পানি-বিদ্যুতের বিল কমাবে। কিন্তু বিজেপি পানি ও বিদ্যুতের দাম কমানো নিয়ে সরাসরি কোনো প্রতিশ্রুতি দেয়নি । দিল্লিকে পূর্ণ রাজ্যের মর্যাদা দেওয়ার দাবি থেকে সরে এসেছে বিজেপি । অথচ এএপি ইশতেহারে উল্লেখ করেছে, তারা দিল্লিকে পূর্ণ রাজ্যের মর্যাদা দেবে।

তবে নরেন্দ্র মোদি জরিপের ফলকে আমলে নিতে রাজি নন । দক্ষিণ দিল্লিতে এক নির্বাচনী সভায় মোদি বলেন, ‘মিথ্যা কথায় কান দেবেন না। বিজেপি নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে।’ তিনি বলেন, ‘আমি বারানসিতে লোকসভায় দাঁড়িয়েছিলাম। জরিপে বলা হয়েছিল, ‘আমি বড় ব্যবধানে হেরে যাব। কিন্তু নির্বাচনে আমি জিতে গিয়েছিলাম।’

তিনটি প্রধান জরিপের সম্মিলিত ফলাফলে আভাস মিলেছে, এএপি ৩৭টি আসন পেতে পারে। আর বিজেপি পেরে পারে ২৯টি আসন। কংগ্রেস জয়ী হতে পারে চারটি আসনে। ইংরেজি দৈনিক হিন্দুস্তান টাইমস, ইকোনমিক টাইমস এবং এবিপি নিউজ তিনটি আলাদা জরিপ করে। দিল্লিতে ভোট নেওয়া হবে আগামী শনিবার । ১০ ফেব্রুয়ারি ফলাফল ঘোষণা করা হবে ।

গত নির্বাচনে দিল্লি বিধানসভার একক বৃহত্তম দল হিসেবে এএপি কংগ্রেসের সমর্থনে সরকার গঠন করে। তবে মাত্র ৪৯ দিনের মাথায় কেজরিওয়ালের সেই সরকার পদত্যাগ করে। সেটি ভুল ছিল উল্লেখ করে এবার তিনি ভোটারদের কাছে ক্ষমা চাইছেন এবং প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন, নির্বাচিত হলে এমনটা আর হবে না। বরং সামনে থেকে বাধা পার করে জনগণের জন্য কাজ করে যাবেন তিনি ও তাঁর সরকার।সুত্রঃ এএফপি

Share.

Comments are closed.