Visit Us On TwitterVisit Us On FacebookVisit Us On GooglePlusVisit Us On PinterestVisit Us On YoutubeVisit Us On Linkedin

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের জয়

0

আলোরপথ টোয়েন্টিফোর ডটকমঃ

বাংলাদেশ আজ সোমবার অ্যাডিলেড ওভালে টস হেরে আগে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ২৭৫ রান সংগ্রহ করেছে । জবাবে ব্যাট করতে নেমে ইংল্যান্ড ২৬০ রানে অলআউট হয়ে যায় ।    রানআউটের শিকার হয়ে ইনিংসের অষ্টম ওভারে বিদায় নিয়েছেন মঈন আলী (১৯)। উইকেটরক্ষক মুশফিক আরাফাত সানীর বলে সৌম্যর থ্রো থেকে মঈনকে রানআউট করেন । ইয়ান বেল ও আলেক্স হেলস দ্বিতীয় উইকেটে দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন । তবে মাশরাফি হেলসকে সাজঘরে ফিরিয়ে ৫৪ রানের জুটি ভাঙেন ।বাংলাদেশের এই সেরা পেসার ২৭ রান করা হেলসকে মুশফিকের ক্যাচে পরিণত করেন । রুবেল হোসেন ২৭তম ওভারে ইংলিশ শিবিরে জোড়া আঘাত করেন।তিনি এই ওভারের প্রথম বলে ইয়ান বেলকে (৬৩) মুশফিকুর রহিমের তালুবন্দি করান।আর ইয়ান মরগানকে ওভারের চতুর্থ বলে সাকিবের তালুবন্দি করান রুবেল। ইংলিশ অধিনায়ক রানের খাতা না খুলতেই বিদায় নেন ।   ইংল্যান্ড দলীয় ১৩২ রানের মাথায় জেমস টেলরকে হারিয়ে ধুঁকতে থাকে ।তাসকিন আহমেদ তাকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান।তিনি দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে টেলরকে স্লিপে দাঁড়িয়ে থাকা ইমরুল কায়েসের ক্যাচে পরিণত করেন ।    জো রুট ও জশ বাটলার এরপর ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ৩১ রান যোগ করে ইংল্যান্ডকে জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন ।মাশরাফি এই জুটিতে আঘাত হানেন।তিনি জো রুটকে সাজঘরে ফেরান ।রুট বিদায়ের আগে ৪৭ বলে দুটি চারের মারে ২৯ রান করেন ।    এর আগে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহ এনে দেন ।এই দুজন ৮ রানেই ২ উইকেট হারানো দলকে বড় সংগ্রহ এনে দেন । মাহমুদউল্লাহ বিশ্বকাপে প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে সেঞ্চুরি করেছেন।তিনি দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১০৩ রান করেছেন ।মুশফিকের ব্যাট থেকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৮৯ রান আসে । বাংলাদেশ ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে ।দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও তামিম ইকবাল উইকেটের প্রকৃতি বুঝে ওঠার আগেই দলীয় ৮ রানের মধ্যে বিদায় নেন।ইমরুল বিশ্বকাপে সুযোগ পেয়ে নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি । জেমস অ্যান্ডারসনের করা ইনিংসের প্রথম ওভারের চতুর্থ বলে তৃতীয় স্লিপে ক্রিস জর্ডানের তালুবন্দি হন এই ওপেনার (২)। এরপর অ্যান্ডারসনের ব্যক্তিগত দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে তামিম নিজের উইকেট একরকম বিলিয়ে দেন। তিনি স্ট্যাম্পের একটু বাইরের বলে ব্যাট ছোঁয়াতে গিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে দাঁড়ানো জো রুটের হাতে সহজ ক্যাচ তুলে দেন । মাহমুদউল্লাহ ও সৌম্য সরকার শুরুতেই ২ উইকেট হারানোর পর তৃতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন ।সৌম্য মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে জুটি বেঁধে দলকে ভালই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে তাকে বিদায় নিতে হয় দলীয় ৯৪ রানে ক্রিস জর্ডানের একটি বাউন্সার বলে ।সৌম্য লাফিয়ে ওঠা বলটি ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন । কিন্তু বলটি তার গ্লাভসে লেগে উইকেটরক্ষক জশ বাটলারের গ্লাভসে চলে যায়।সৌম্য ৫২ বলে ৪ চার ও এক ছক্কায় ৪০ রান করেন । মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে তার জুটিতে ৮৬ রান আসে। সৌম্যর পর সাকিব আল হাসান দ্রুতই বিদায় নেন ।তিনি মাত্র ৬ বল মোকাবিলা করেই সাজঘরের ফেরেন।তিনি দলীয় ৯৯ রানে ইনিংসের ২১তম ওভারে মঈন আলীর বলে স্লিপে জো রুটের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ।সাকিবের সংগ্রহ মাত্র ২ রান।   দ্রুতই সৌম্য ও সাকিব সাজঘরে ফিরলে পঞ্চম উইকেটে মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে মাহমুদউল্লাহ দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন।বাংলাদেশের নিজেদের প্রথম চার বিশ্বকাপে কোনো সেঞ্চুরি ছিল না। তবে মাহমুদউল্লাহ পঞ্চম বিশ্বকাপে এসে সে স্বপ্নও পূরণ করেন । ইনিংসের ৪৪তম ওভারে স্টুয়ার্ড ব্রডের বল ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ঠেলে দিয়ে ১ রান নিয়েই সেঞ্চুরি আনন্দে মাতেন মাহমুদউল্লাহ। এটাই প্রথম সেঞ্চুরি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারে । মাহমুদউল্লাহ সেঞ্চুরির পর দলীয় ২৪০ রানে রানআউটের শিকার হন। তবে তার আগেই তিনি ১৩৮ বলে ৭ চার ও ২ ছক্কায় ১০৩ রান করেন । পঞ্চম উইকেটে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ১৪১ রান সংগ্রহ করেন মাহমুদউল্লাহ। এটাই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের জুটির রেকর্ড ওয়ানডেতে পঞ্চম উইকেটে।ইনিংসের ৪৮তম ওভারে ব্রডের বলে কভারে জর্ডানের হাতে ধরা পড়েন মুশফিক ( ৮৯)। ৭৭ বলে ৮ চার ও এক ছক্কায় ইনিংসটি সাজান তিনি । বাংলাদেশ একাদশে দুটি পরিবর্তন এসেছে এই ম্যাচে। এনামুল হক বিজয়ের বদলে ইমরুল কায়েস এবং নাসির হোসেনের পরিবর্তে আরাফাত সানী একাদশে ঢুকেছেন।

 

Share.

Comments are closed.