কেওঢালা থেকে অলিপুরা পর্যন্ত রাস্তাটি দীর্ঘদিন মেরামত না হওয়ায় জনদুর্ভোগ চরমে

0

আলোরপথ টোয়েন্টিফোর ডটকমঃ

সাব্বির আহমেদ সেন্টু, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

বন্দরের মদনপুর ইউনিয়নস্থ কেওঢালা থেকে সোনারগাঁয়ের সাদিপুর ইউনিয়নের অলিপুরা বাজার পর্যন্ত দীর্ঘ ৪ কিলোমিটারের রাস্তাটি দীর্ঘদিনের সংস্কারের অভাবে জনদুর্ভোগ চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন প্রায় কয়েক হাজার শিক্ষার্থী স্কুল ও কলেজে গমন করে এবং প্রায় বিশ হাজার শ্রমিক আদমজী ইপিজেড, ওপেক্স সিনহা গার্মেন্টস, কাঁচপুর বিসিক, রহিম স্টিল, বন্দর স্টিল, পারটেক্স, সুরুজ মিয়া গ্রুপ, জামালউদ্দিন টেক্সটাইল, অলিম্পিক ইন্ডাঃ, বেঙ্গল, গাজীপুর পেপার মিলস, এসকিউ কেবলস, চৈতি গার্মেন্টস সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে শ্রমের জন্য যায়। সোনারগাঁয়ের বারদীতে মাধ্যম হিসেবে বেছে নেয়। কিন্তু সুদীর্ঘ কাল থেকে এলাকার যোগাযোগের একমাত্র বাহন হচ্ছে বেবী বা টেম্পু। কিন্তু সরকার কর্তৃক মহাসড়কে ৩ চাকার যানবহন নিষিদ্ধ করার কারণে সকালে কর্মস্থলে যাওয়ার সময় হাজার হাজার শ্রমিককে যানবাহনের অভাবে হিমশিম খেতে হচ্ছে প্রতিনিয়তই। আর বর্ষা মওসুমে একটু বৃষ্টি হলেতো কোন কথাই নেই যানবাহন পাওয়া আরও কষ্টসাধ্য বিষয় হয়ে দাড়ায়। শ্রীরামপুর, কাজীপাড়া ও কাজহরদী এলাকার কিছু অসাধূ জমির মালিক ও কিছু দালাল চক্রের কারণে অত্র অ লের ফসলী জমির মাটি হরহামেশাই ইট ভাটায় বিক্রি হচ্ছে, আর এই মাটি দিয়েই বানানো হচ্ছে ইট। মাটি ইট ভাটায় পরিবহনে ব্যবহৃত মোটা চাকার ট্রাক্টর, ইট ভাটায় কয়লা আনতে ২০-৩০ টনের ট্রাক ও ইট বিক্রিতে ব্যবহৃত ঘাতক ট্রাকের আঘাতে রাস্তা ভেঙ্গে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। রাস্তাটি ভেঙ্গে যান চলাচলে সমস্যা হবার পাশাপাশি রাস্তাটি প্রশস্ত না হবার কারণে বাস বা অন্য কোন যানবাহনের চলার সুযোগটি তৈরী হচ্ছেনা। ট্রাক ও ট্রাক্টরের মত ভারী যান চলার কারনে সামান্য প্রশস্ত রাস্তাটির বিভিন্ন জায়গা মারাত্মকভাবে ভেঙ্গে গেছে এবং ভারী যান চলার কারনে প্রায়ই যানজটের সৃষ্টি হয়ে সকলের গন্তব্যে পৌছতে দেরী হয়ে যাচ্ছে বলে মনে করে অত্র অ লের সকল সচেতন মহল। যার ফলে প্রায়ই শ্রমিকদের দেরীতে কর্মস্থলে পৌছানোর মাশুল হিসেবে বেতন কাটা যাচ্ছে। ৩ চাকার যান চলাচল বন্ধ করার কারণে এ অ লের বেবীগুলো কেওঢালা থেকে কাজীপাড়া ও অলিপুরায় চলাচল করছে ও এই অ লের অসংখ্য বেবী চালকদের জীবনে নেমে এসেছে চরম অনিশ্চয়তা। বেবী চালকরা অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়েছে এবং তাদের সংসার চালানো এখন অনেক কষ্টের হয়ে গেছে বলে জানা যায়। এমনকি কাঁচপুর পুলিশ ফাঁড়ি সহ হাইওয়ে পুলিশের অত্যাচারে ও বিভিন্ন নেতাদের মাসিক ও দৈনিক চাঁদা দিয়ে বেবী চালকরা অতিষ্ঠ জীবন যাপন করা সহ তীব্র ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ করছে দিনের পর দিন। প্রায় সময়ই দূর্ঘটনা ঘটছে ও বৃষ্টিতে পিছলে গিয়ে বেবী রাস্তার পাশে পড়ে যাবার ঘটনাও ঘটার কথা শোনা যায়। প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, রাষ্ট্রপতি থাকাকালে হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ, প্রাক্তন সমাজকল্যান মন্ত্রী ও ব্যরিস্টার রাবিয়া ভূঁইয়া এ রাস্তা দিয়ে সোনারগাঁয়ে এসেছিলেন। জাতীয় নেতৃবৃন্দের ছোঁয়া থাকা সত্বেও এ রাস্তাটি এভাবে দীর্ঘদিন প্রশস্ত ও সংস্কার না হওয়ায় হতবাক সবাই। এই রাস্তাটি নতুন ভাবে মেরামত ও প্রশস্ত করা হলে সোনারগাঁয়ের সাদিপুর, সনমান্দি, বারদী ও বন্দরের ধামগড়, মদনপুর ইউনিয়নের মানুষের জন্য যোগাযোগে এক নতুন মাইলফলক সৃষ্টি করবে বলে বিশ্বাস করে এলাকাবাসী। জনগনের ভোগান্তি লাঘবে ও নিত্যদিনের এ দৈন্যদশা থেকে পরিত্রানের জন্য (শহর-বন্দর) আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব একেএম সেলিম ওসমান ও সোনারগাঁও আসনের এমপি জননেতা লিয়াকত হোসেন খোকার নিকট রাস্তাটির বিষয়ে আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অত্র অ লের সকল সচেতন মানুষ সহ সুশীল সমাজ।

Share.

Comments are closed.